Breaking News

স্ত্রী কু প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্বামীর বিরুদ্ধে মাদক মামলা!

নরসিংদীর মনোহরদীতে সাবেক মেম্বার ও তার সহযোগীদের কু প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সাহিদা আক্তার নামে এক গৃহবধূর স্বামীকে মাদক মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্বামীর মুক্তি দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ওই নারী। বর্তমানে কারাগারে থাকা ওই যুবক কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের বীরগাঁও গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের ছেলে মো. আসাদ মিয়া। তিনি একজন পোল্ট্রি ব্যবসায়ী।সোমবার (২ আগস্ট) বিকেলে কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনের হল রুমে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

এ সময় গৃহবধূর পরিবারের লোকজন উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ওই গৃহবধূ জানান, ৪ মাস বীরগাঁও গ্রামের আসাদ মিয়ার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার মো. আব্দুল মান্নান তাকে কু প্রস্তাব দিয়ে আসছে। এতে রাজি না হওয়ায় তাদের সংসার ভেঙে দেওয়াসহ বিভিন্ন ধরণের হুমকি দেয় আব্দুল মান্নান। এ ঘটনায় গত ২৮ জুন গৃহবধূ সাহিদা বেগম মনোহরদী থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

এতে আরো ক্ষিপ্ত হয় মান্নান। এর জেরে গত শনিবার রাত সাড়ে ৯টায় সাহিদার স্বামী আসাদকে বাড়ি থেকে ডেকে এনে জোরপূর্বক কালো রংয়ের মাইক্রোবাসে উঠায় আব্দুল মান্নান ও তার সহযোগী নজরুল ইসলাম ও ইসমাইল হোসেন। তাকে উঠিয়ে নরসিংদী ও কিশোরগঞ্জ জেলার মধ্যবর্তী নির্জন জায়গায় নিয়ে অস্র ধরে ভয়-ভীতি দেখিয়ে স্ত্রীকে তালাক দিতে বলে অপহরণকারীরা। এতে আসাদ রাজি না হওয়ায় রাতেই পার্শ্ববর্তী কটিয়াদী উপজেলার সীমানায় নিয়ে কয়েক পিস ইয়াবা ট্যাবলেট দিয়ে থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়।

সাহিদা সাংবাদিকদের জানান, ‘আমি আমার পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় আছি। প্রধানমন্ত্রীসহ প্রশাসনের কাছে আমার স্বামীর মুক্তিসহ সুবিচার দাবি করি। এ বিষয়ে অভিযুক্ত আব্দুল মান্নান বলেন, ‘আমি তাদের কাছে টাকা পাই। পাওনা টাকা না দেওয়ার জন্য আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তোলা হচ্ছে।’কৃষ্ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান এমদাদুল হক আকন্দ বলেন, ‘আসাদ একজন ভালো ছেলে। সে কখনো মাদকরে সঙ্গে জড়িত নয়। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে মাদক মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।’

Check Also

জামাইকে হাতুড়িপেটা করে পুলিশে দিলেন শ্বশুর

নববধূর সঙ্গে দেখা করতে শ্বশুরবাড়ি গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে আপ্যায়নের বদলে শিকার হয়েছেন হাতুড়িপেটার। শুধু তাই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *