প্রবাসীর স্ত্রী নিয়ে উ’ধাও,ধ’রিয়ে দিতে পারলেই ১লক্ষ ৫০ হাজার টাকা পুর-ষ্কা-র ঘোষণা !

চট্টগ্রামের মীরসরাই উপজে’লার বারইয়াহাট পৌর বাজারের ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেন প্রবাসীর স্ত্রী’কে নিয়ে গত ৩ সপ্তাহ ধরে উ’ধা’ও রয়েছেন। এই ঘটনায় দুই থা’না’য় পৃথক অ’ভি’যো’গ দা’য়ে’র করা হয়েছে। খুঁ’জে না পাওয়ায় তাদের উভ’য়ের পরিবারই উ’দ্বি’গ্ন হয়ে পড়েছে। সন্ধা’ন চাইছে উ’ভ’য় পরিবার। মোশাররফের ৪ বছরের ক’ন্যা সারাদিন বাবাকে খুঁ”জছে বলে জানান তার স্ত্রী’ ফারহানা আহমেদ। মীরসরাই উপজে’লার জো’রারগঞ্জ ও পাশ্ববর্তী ফেনী থা’না’য় দা’য়ের করা জিডি সূত্রে জানা গেছে,

ফেনীর ফরহাদ নগর গ্রামের ভোরবাজারের পাশ্ববর্তী সৌদি প্রবাসী শহিদ উল্লাহ’র স্ত্রী’ নাজমা বেগমকে (৩৬) চৌদ্দ বছরের একটি পুত্র সন্তানসহ বছর খানেক আগে বিয়ে করেন সৌদি প্রবাসী শহিদ উল্লাহ। ইতিপূর্বে তিনজনের সাথে সংসার করেন নাজমা। কিন্তু বছর না যেতেই একই গ্রামের এক কন্যা সন্তানের জনক মোশাররফ হোসেনের (৩৫) সাথে পা’লি’য়ে যান নাজমা বেগম।

ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেনের স্ত্রী’ ফারহানা আহমেদ জানান, তার স্বামী বা’রই’য়াহা’টে হার্ড’ওয়া’রের ব্যবসা করেন। বাবার দেয়া ব্যবসার পুঁ’জি ও ভাইদের থেকে ধা’র করা অন্তত ৫০ লক্ষ টাকা আর পাশের গ্রামের নাজমা ও তার প্রবাসী স্বামীর ২০ ভরি স্বর্ণা’লংকার ও অর্ধকো’টি নগদ টাকা নিয়ে দু’জনে পা’লি’য়ে গেছেন। নাজমা’র প্রবাসী স্বামী শহিদ উল্লাহ বলেন, নাজমাকে বিয়ের পর শ’পথ করি’য়েছিলাম কোনো দিন আমাকে ছেড়ে আবার পা’লা’বে না বলে। কিন্তু নি’ষ্ঠু’র এই মহি’লা আমাকে ছেড়ে গেলো।

তবে তিনি এখনো ফিরে এলে তাকে গ্রহণ করবেন বলে জানান। এসময় তাদের ‘ধ’রি’য়ে দিতে পারলে ৫০ হাজার টাকা পুরষ্কারের ঘোষণা দেন তিনি। আবার মোশাররফের স্ত্রী’ ফারহানা আহমেদ বলেন, আমাদের কন্যা মাদিহা (৪) প্রতিদিন বাবার জন্য কাঁ’দছে। সন্তানের কা’ন্না আর আ’র্ত”নাদের দিকে তাকিয়ে আমি আমা’র স্বামীকে ফি’রে পেতে চাই। এই বিষয়ে জো’রারগঞ্জ থা’না’র ত’দন্ত কর্মক’র্তা এসআই শরিফুজ্জামান বলেন, আম’রা দু’জনেরই>খোঁ’জ করছি। আবার যে কেউ আমাদের কাছে তাদের খোঁ’জ দিতে পারলে আম’রা স’র্বাত্ম’ক সহ’যো”গিতা করবো

Check Also

অবশেষে পরীমণির বিষয়ে যা বললেন প্রথম স্বা,মী সৌরভ

বর্তমান সময়ের সেরা আলোচিত জনপ্রিয় নায়িকা পরীমণি। আলোচনা- সমালোচনা নিয়েই তার ক্যারিয়ার। বরাবরই তিনি আলোচনায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *